কমনওয়েলথ গেমসের বর্ণাঢ্য উদ্বোধন অাজ – BD Sports 24
  • কমনওয়েলথ গেমসের বর্ণাঢ্য উদ্বোধন অাজ

    April 4th, 2018

    অারিফুর রহমান, বিশেষ প্রতিনিধি
    বিডিস্পোর্টস২৪ডটকম
    ‘‍‌শেয়ার দ্য ড্রিম’ বা ‘স্বপ্নকে ভাগাভগি করি’ এ স্লোগানকে সামনে রেখে আর মাত্র কয়েক ঘন্টা পরই অস্ট্রেলিয়ার পর্যটন নগরী গোল্ডকোস্টের কারারা স্টেডিয়ামে ২১তম কমনওয়েলথ গেমসের পর্দা উঠছে। ৭১ জাতির বর্ণাঢ্য এ আসরের উদ্বোধন করবেন প্রিন্স অব ওয়েলস চার্লস।

    বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪টায় জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি সনি সিক্স ও টেন-২ সরাসরি সম্প্রচার করবে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের পতাকা বহন করবেন গ্লাসগো কমনওয়েলথ গেমসে রৌপ্য জয়ী শ্যুটার আব্দুল্লাহ হেল বাকী।

    ৪-১৫ এপ্রিল এ ক্রীড়াযজ্ঞে মোট ২৩টি ডিসিপ্লিনের সর্বমোট ২৭৫টি স্বর্ণ পদক জয়ের জন্য কমনওয়েলথ ভুক্ত দেশের ক্রীড়াবিদরা লড়বেন। এ আসরে বাংলাদেশসহ কমনওয়েলথ ভুক্ত ৭১টি দেশের ৬ হাজার ৬০০’র বেশি অ্যাথলেট ও কর্মকর্তা অংশগ্রহণ করছেন। আসরের মূল আয়োজক গোল্ডকোস্ট হলেও ব্রিসবেন, কেয়ার্নস ও টাউন্সভিলেতেও বেশ কয়েকটি ডিসিপ্লিন অনুষ্ঠিত হবে।

    লাল-সবুজের দেশ বাংলাদেশ ছয় ডিসিপ্লিনে অংশ নিচ্ছে। ডিসিপ্লিনগুলো হচ্ছে অ্যাথলেটিক্স, বক্সিং, শ্যুটিং, সাঁতার, ভারোত্তোলন ও কুস্তি। এ ছয় ডিসিপ্লিনে মোট ২৬ জন প্রতিযোগী অংশ নিচ্ছেন। তবে কর্মকর্তাসহ ৩৭ সদস্য বিশিষ্ট বাংলাদেশ কন্টিনজেন্ট গেমসে অংশ নিচ্ছেন।

    প্রতি চার বছর পর পর কমনওয়েলথ গেমস অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। ১৯৩০ সালে কানাডার হ্যামিল্টনে এককালের ব্রিটিশ রাজ্যভুক্ত ১১টি দেশের অংশগ্রহণে এর যাত্রা শুরু হয়েছিল। যেখানে অংশ নেয় ৪০০জন অ্যাথলেট। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কারণে ১৯৪২ ও ১৯৪৬ সালে গেমস আয়োজিত সম্ভব হয়নি। এরপর থেকে ফের নিয়মিত আয়োজিত হয়ে আসছে।

    অস্ট্রেলিয়া এ নিয়ে সর্বাধিক পাঁচবারের মত গেমস আয়োজন করতে যাচ্ছে। দেশটি ১৯৩৮ সালে সিডনি শহরে আয়োজন করার পর ১৯৬২ সালে পার্থ, ১৯৮২ সালে ব্রিসবেন ও ২০০৬ সালে মেলবোর্ন শহরে কমনওয়েলথ গেমসের স্বাগতিক ছিল। তবে অস্ট্রেলিয়ার কোন আঞ্চলিক শহরের উদ্যোগে এবারই প্রথম কোন বড় ধরনের গেমস হচ্ছে।

    গেমসটির ইতিহাসে সর্বাধিক ডিসিপ্লিনে এবারের আসর অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মোট ২৩টি ডিসিপ্লিনের পাশাপাশি থাকছে ৭টি প্যারা স্পোর্টস। সর্বমোট ২৭৫টি স্বর্ণ পদক জয়ের জন্য লড়বে কমনওয়েলথ ভুক্ত দেশের ক্রীড়াবিদরা। সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে মাল্টিইভেন্টের এ গেমসে এবারই প্রথম লিঙ্গ সমতা আনা হয়েছে। নারী ও পুরুষ অ্যাথলেটদের জন্য গেমেসে সমান সংখ্যক পদক রাখা হয়েছে।

    বাংলাদেশ যে ছয়টি ডিসিপ্লিনে অংশ নিচ্ছে এর মধ্যে শ্যুটারদের নিয়েই প্রত্যাশাটা বেশি।কেননা এ ইভেন্টে থেকে ১৯৯০ সালে অকল্যান্ড কমনওয়েলথ গেমসে স্বর্ণ জয় করেছিলেন আতিকুর রহমান ও আবদুস সাত্তার নিনি জুটি। ২০০২ সালে ম্যানচেস্টার কমনওয়েলথ গেমসে আসিফ হোসেন স্বর্ণ জয়ের কৃতিত্ব দেখান। ২০০০ সালে মেলবোর্ন কমনওয়েলথ গেমস থেকে আসে দলগত রৌপ্যও। এমন কী, ২০১০ সালে দিল্লি কমনওয়েলথ গেমস থেকে দলগত ব্রোঞ্জ জয় করেন শ্যুটাররা। সর্বশেষ ২০১৪ সালে গ্লাসগো গেমসে আবদুল্লাহেল বাকী রৌপ্য জয় করেন। যে কারণে শ্যুটিংকে ঘিরেই যত প্রত্যাশা।

    উল্লেখ্য কমনওয়েলথ গেমস আয়োজনের প্রধান উদ্যোক্তা ছিলেন একজন ক্রীড়া সাংবাদিক। এর পরিচালনায় ছিলেন মেলভিল মার্কস (ববি) রবসন। তিনিই বাস্তবতার নিরিখে বুঝিয়ে আলোচনার মাধ্যমে কমনওয়েলথ ভুক্ত জাতিকে একীভুক্ত করেছেন।কমনওয়েলথ গেমসের অন্তর্নিহিত অর্থ শুধুমাত্র খেলাধুলাই নয়, এর অন্যতম উদ্দেশ্য হচ্ছে কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে সম্প্রীতি বজায় রাখার পাশাপাশি মানবিকতার জয়গান।

    কমনওয়েলথ গেমসে বাংলাদেশ

    অ্যাথলেটিক্স: মেজবাহ আহমেদ, শিরিন আক্তার।

    বক্সিং: মো. রবিন মিয়া, আল-আমিন।

    ভারোত্তোলন: শিমুল কান্তি সিংহ, ফুলপতি চাকমা, মাবিয়া আক্তার সীমান্ত, জহুরা খাতুন নিশা, ফাহিমা আক্তার ময়না।

    সাঁতার: আরিফুল ইসলাম, মোহাম্মদ মাহমুদুন নবী নাহিদ, নাজমা খাতুন।

    শ্যুটিং: আবদুল্লাহ হেল বাকী, রাব্বি হাসান মুন্না, আনোয়ার হোসেন, শোভন চৌধুরী, শাকিল আহমেদ, রিসালাতুল ইসলাম, সৈয়দা আতকিয়া হাসান, আরদিনা ফেরদৌস, আরমিন আশা, উম্মে জাকিয়া সুলতানা, শারমীন শিল্পা, সুরাইয়া আক্তার।

    কুস্তি: আল আমজাদ, শিরিন সুলতানা।

    বিডিস্পোর্টস২৪ডটকম/এমএ


অতিথি কলাম

সাক্ষাৎকার

স্পোর্টস ফ্যাশন


প্রবাসী তারকা

জেলা ক্রীড়া সংস্থা

বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  


ক্রীড়া সাহিত্য

ব্যাডমিন্টন

আরচ্যারি

গল্‌ফ

ভারোত্তোলন

মহিলা ক্রীড়া সংস্থা