ক্রিকেটের জন্যই এবার শিরোপা চাই বাংলাদেশের – BD Sports 24
  • ক্রিকেটের জন্যই এবার শিরোপা চাই বাংলাদেশের

    March 18th, 2018

    মোয়াজ্জেম হোসেন রাসেল, বিশেষ প্রতিনিধি

    বিডিস্পোর্টস২৪ ডটকম

    ঢাকা, ১৮ মার্চ: দেশের বাইরে প্রথমবারের মতো ত্রিদেশীয় কোনো টুর্নামেন্টের ফাইনালে খেলতে নামছে বাংলাদেশ। শ্রীলংকার স্বাধীনতার ৭০ বছর পূর্তিতে আমন্ত্রণমূলক এই আসরে স্বাগতিকরা ছাড়া খেলছে বাংলাদেশ ও ভারত। চন্ডিকা হাথুরুসিংহের শিষ্যদের বিদায় করে ক্রিকেটের দেশের সাথে ফাইনালে খেলছে লালসবুজ প্রতিনিধিরা। এই আসরে ডাবল লিগ পদ্ধতিতে অংশ নিয়ে টানা দুই ম্যাচে শ্রীলংকাকে হারিয়ে শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে অবতীর্ণ হতে যাচ্ছে সাকিব আল হাসানের দল। কিন্তু ফাইনালের আগে লংকানদের বিপক্ষে জয়টাই মুখ্য হয়ে আছে। সে কারণেই ছুটির দিনেও ভারত-বাংলাদেশ ম্যাচটি অনেকটাই দর্শকশূন্য গ্যালারিতে হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

    এর আগে চারটি আসরের ফাইনালে খেলেছিল টাইগাররা। কিন্তু কোনো ম্যাচেই শেষ হাসি হাসতে পারেনি। এবার যেন সেই চওড়া হাসিটা বাংলাদেশের থাকে সেই চেষ্টায়ই মত্ত রয়েছে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহীমরা। ২০০৯ সালে প্রথমবারের মতো ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল শ্রীলংকার। বোলার মুত্তিয়া মুরালিধরনের বারুদে ব্যাটিংয়ের কারণে ২ উইকেটে হেরে প্রথমবারের মতো কাঁদতে হয়েছিল। এরপর ২০১২ এশিয়া কাপে দ্বিতীয়বারের মতো ফাইনালে মুখোমুখি হয় পাকিস্তানের। জয়ের খুব কাছে গিয়ে সে ম্যাচ জেতা হয়নি। ২ রানে হেরে কেঁদেছিল পুরো বাংলাদেশ! অথচ এই ম্যাচটা না জেতার কোনো কারণই ছিল না।

    এরপর ক্রিকেট নিয়ে স্বপ্ন দেখা মানুষের সংখ্যা কিছুটা হলেও কমে গিয়েছিল। যদিও মাঠের সময়টা খুব ভালো কাটেনি। ২০১৬ সালে আবারো এশিয়া কাপের স্বাগতিক হয় বাংলাদেশ এবং দ্বিতীয়বারের মতো ফাইনালে খেলার সুযোগ হয়। চার বছর পর আবারো শিরোপা জয়ে আশায় বুক বেধে থাকে ক্রিকেটপ্রেমীরা। টোয়েন্টি-২০ ফরম্যাটে প্রথমবার আয়োজিত এই আসরে ভারতের মোকাবেলা করতে হয়। প্রথম দুই ফাইনালে খুব কাছে গিয়ে হারলেও এই ম্যাচটাতে মোটেও প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেনি মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। ৮ উইকেটে অসহায় আত্মসমর্পণ করেছিল সে সময়। চতুর্থ ফাইনাল ম্যাচের গন্ধ এখনো শুকায়নি মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়াম থেকে। শ্রীলংকা ও জিম্বাবুয়েকে টানা দুই ম্যাচ হারিয়ে প্রথম দল হিসেবে ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছিল সাকিব আল হাসানের দল। এরপরই যেন পথহারা হয়ে যায় দল। যার প্রভাব পড়ে ফাইনালে। প্রতিপক্ষ দলের কোচ হওয়ার চন্ডিকা হাথুরুসিংহের শ্রীলংকার কাছে ৭৯ রানে পরাজিত হয়ে আবারো হতাশা নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়। এক মাসের ব্যবধানে আবারো ফাইনালের মঞ্চে বাংলাদেশ। দুই বছর আগের এশিয়া কাপের মতো এবারো প্রতিপক্ষ ভারত। তবে পূর্ণশক্তির নয়, রোহিত শর্মার নেতৃত্বাধীন দলটি যদিও খর্বশক্তির।

    কিন্তু মাঠের পারফরম্যান্স কিন্তু সেই প্রমাণ বহন করছেনা। এই আসরে সবার আগে ফাইনালে পৌছে যায় বিরাট কোহলি, ভুবনেশ্বর কুমার, মোহাম্মদ শামি, হার্দিক পান্ডিয়াবিহীন দলটি। সে কারণে পরিষ্কার ফেবারিটের তকমাও গায়ে মেখে নিয়েছে সর্বশেষ দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজে দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলা দলটি। বাংলাদেশ যে পরিষ্কার আন্ডারডগ হিসেবেই খেলবে সেটা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। পরিসংখ্যানও ভারতের পক্ষেই কথা বলছে। এখন পর্যন্ত সাতটি ম্যাচে অংশ নিয়ে কোন জয় নেই বাংলাদেশের। তবে লংকানদের বিপক্ষে টানা দুই ম্যাচ জিতে দারুণ ক্রিকেট খেলে জিতেছে। বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে বড় টনিক হিসেবে কাজ করবে অধিনায়ক হিসেবে সাকিবের উপস্থিতি। তবে এই ম্যাচে জয়টা প্রয়োজনের ক্রিকেটের স্বার্থে। শিরোপা জয়ের অভ্যাসটাই যেন এখনো হয়নি বাংলাদেশের! সেটা শুরু হোক শ্রীলংকা থেকে, এমন প্রত্যাশা করাটাও বাড়াবাড়ি কিছু নয়।

     

    বিডিস্পোর্টস২৪ ডটকম/বিকে


অতিথি কলাম

সাক্ষাৎকার

স্পোর্টস ফ্যাশন


প্রবাসী তারকা

জেলা ক্রীড়া সংস্থা

বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০