চট্টগ্রাম আবাহনী ফাইনালে – BD Sports 24
  • চট্টগ্রাম আবাহনী ফাইনালে

    February 6th, 2018

    ক্রীড়া প্রতিবেদক

    বিডিস্পোর্টস২৪ ডটকম

    ঢাকা, ৬ ফেব্রুয়ারি: স্বাধীনতা কাপ ফুটবলের দ্বিতীয় দল হিসেবে ফাইনালে ওঠেছে গত আসরের চ্যাম্পিয়ন চট্টগ্রাম আবাহনী। এর ফলে শিরোপা অক্ষুণ্ন রাখার পথে আরো একধাপ এগিয়ে গেলো বন্দরনগরীর এই দলটি।

    আজ বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় সেমিফাইনালে ঘটনাবহুল ম্যাচে পুরোনো ঢাকার ক্লাব রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস সোসাইটিকে ১-০ গোলে পরাজিত করে ফাইনালে পা রাখে চট্টগ্রাম আবাহনী। পেনাল্টি থেকে ৪৫+২ মিনিটে গোলটি করেন চট্টগ্রাম আবাহনীর স্ট্রাইকার সাখাওয়াত হোসেন রনি।

    এর ফলে ১২ দলের অংশগ্রহণে স্বাধীনতা কাপ ফুটবলের ফাইনালে উঠলো গ্রুপ ‘ডি’র দুই দল চট্টগ্রাম আবাহনী ও আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ। উল্লেখ্য, গ্রুপ পর্বে এই দুই দল কোনো জয় ছাড়াই কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠে।

    ১১ মিনিটে গোলের একটি সহজ সুযোগ নষ্ট করে রহমতগঞ্জ। এ সময় বাম প্রান্ত থেকে ডি বক্সের সামান্য বাইরে থেকে রহমতগঞ্জের ফয়সাল আহমেদের ক্রস চট্টগ্রাম আবাহনীর গোলরক্ষক আশরাফ ইসলাম রানা ঠিকমত প্রতিহত করতে পারেননি। তাই ডি বক্সের ভেতরে বল পেয়ে যান স্ট্রাইকার হেলাল। কিন্তু তার নেয়া শট ক্রস বারের উপর দিয়ে বাইরে যায়। ফাঁকা পোস্ট পেয়েও গোল করতে পারেননি তিনি।

    ১৩ মিনিটে চট্টগ্রাম আবাহনীও গোলের একটি সুযোগ সৃষ্টি করেছিল। কিন্তু আব্দুল্লাহর ক্রস থেকে জাফর ইকবালের নেয়া হেড লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।

    ৩৪ মিনিটে অফসাইডের কারণে চট্টগ্রাম আবাহনীর একটি গোল বাতিল করে দেন রেফারি। মাঝ মাঠ থেকে আব্দুল্লাহর ফ্রি কিক থেকে ছোট ডি’র সামান্য বাইরে থেকে সাখাওয়াত হোসেন রনি টোকা দিয়ে বল জালে পাঠান। লাইন্সম্যান অফসাইডের পতাকা তোলায় রেফারি গোলটি বাতিল করে দেন।

    ৩৯ মিনিটে ডান প্রান্ত থেকে চট্টগ্রাম আবাহনীর সুশান্ত ত্রিপুরার নেয়া শট রহমতগঞ্জের গোলরক্ষক ফেরাতে ব্যর্থ হলে গোল লাইনে দাঁড়ানো রহমতগঞ্জের ডিফেন্ডার মোজাম্মেল হোসেন নিরা হাত দিয়ে বল ফেরালে রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজান। রেফারি নিরাকে হলুদ কার্ড দেখিয়ে সতর্ক করে দেন।

    পেনাল্টির বাঁশি বাজানোর পরপরই রহমতগঞ্জের কোচ কামাল আহমেদ বাবু রেফারির এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে নিয়ম ভেঙে মাঠে ঢোকে পড়েন। এরফলে প্রায় ৮/১০ মিনিট খেলা বন্ধ থাকে। কামাল বাবু মাঠ থেকে বের হওয়ার পর চট্টগ্রাম আবাহনীর মিডফিল্ডার মামুনুল ইসলাম কামাল বাবুর দিকে তেড়ে আসলে দুই দলের খেলোয়াড় ও কর্মকর্তাদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এতে পেনাল্টি কিক নিতে বিলম্ব হয়।

    পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ৪৫+২ মিনিটে পেনাল্টি থেকে চট্টগ্রাম আবাহনী সাখাওয়াত হোসেন রনি গোল করেন (১-০)।

    ৭১ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করতে ব্যর্থ হয় রহমতগঞ্জ। এ সময় পেনাল্টি সীমানায় চট্টগ্রাম আবাহনীর সোহেল রানা রহমতগঞ্জের শামীম রেজাকে ফাউল করলে রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজান। রহমতগঞ্জের ফরোয়ার্ড মো: ইলিয়াসের নেয়া শট চট্টগ্রাম আবাহনীর গোলরক্ষক আশরাফ ইসলাম রানা ডান দিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে কর্নারের বিনিময়ে প্রতিহত করেন। ফলে খেলায় সমতা ফেরাতে পারেননি কামাল বাবুর শিষ্যরা।

    ৭৭ মিনিটে ১০ জনের দলে পরিণত হয় পুরোনো ঢাকার ক্লাব রহমতগঞ্জ। রহমতগঞ্জের রক্ষণভাগের খেলোয়াড় সাদ্দাম হোসেন এনি এ ম্যাচে দুইবার হলুদ কার্ড পাওয়ায় রেফারি তাকে লাল কার্ড দেখিয়ে মাঠ থেকে বের করে দিলে ১০ জনের দলে পরিণত হয় রহমতগঞ্জ।

    বাকি সময় ১০ জনের দল নিয়েও ভালো খেলা উপহার দেয় রহমতগঞ্জ। কিন্তু দুর্ভাগ্য রহমতগঞ্জের, দুর্ভাগ্য কামাল বাবুর। চট্টগ্রাম আবাহনীর কাছে ১-০ গোলে হেরে প্রথমবারের মতো স্বাধীনতা কাপ ফুটবলের ফাইনালে যাওয়া হলো না পুরোনো ঢাকার এই ক্লাবটির।

    আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি শনিবার একই মাঠে বিকেল চারটায় ফাইনালে মুখোমুখি হবে চট্টগ্রাম আবাহনী ও আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ।

     

    বিডিস্পোর্টস২৪ ডটকম/বিকে


অতিথি কলাম

সাক্ষাৎকার

স্পোর্টস ফ্যাশন


প্রবাসী তারকা

জেলা ক্রীড়া সংস্থা

বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০


ক্রীড়া সাহিত্য

ব্যাডমিন্টন

আরচ্যারি

গল্‌ফ

ভারোত্তোলন

মহিলা ক্রীড়া সংস্থা