ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনেই ১৪ উইকেটের পতন – BD Sports 24
  • ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনেই ১৪ উইকেটের পতন

    February 8th, 2018

    ক্রীড়া প্রতিবেদক

    বিডিস্পোর্টস২৪ ডটকম

    ঢাকা, ৮ ফেব্রুয়ারি: ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনেই ১৪ উইকেটের পতন ঘটেছে। শ্রীলংকা টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ইনিংসে ৬৫.৩ ওভার মোকাবেলা ২২ রানে অলআউট হয়। এরপর বাংলাদেশ প্রথম দিনের শেষ সেশনে ২২ ওভার মোকাবেলা করে ৪ উইকেটে ৫৬ রান করেছে। লঙ্কানদের প্রথম ইনিংসে রান টপকাতে এখনো স্বাগতিকদের প্রয়োজন ১৬৬ রান। হাতে রয়েছে ৬টি উইকেট।

    এতে করে ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনেই উইকেটের পতন ঘটেছে ১৪টি। প্রথম দিনেই স্পিনারদের দাপট লক্ষ্য করা গেছে। পতন হওয়া ১৪ উইকেটের ৯টিই শিকার করেছেন স্পিনাররা। চারটি নিয়েছেন পেসাররা। বাকিটা রান আউট।

    ২২২ রানে শ্রীলংকাকে অলআউট করার পর বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৪ রানে দুই উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে। ওপেনার তামিম ইকবাল লঙ্কান পেসার সুরঙ্গা লাকমালের বলে তারই হাতে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন। ৪ রানের বেশি এগুতে পারেননি বাংলাদেশের এই ড্যাশিং ওপেনার। এরপর গত টেস্টে দুই ইনিংসে সেঞ্চুরি হাঁকানো মুমিনুল ০ রানেই বিদায় নেন রানআউটের শিকার হয়ে।

    ক্রিজে তখন ইমরুল কায়েস ও মুশফিকুর রহীম। দলীয় ১২ রানে মুশফিকুর রহীম সুরঙ্গা লাকমালের একটি বড় ব্যাট উঁচিয়ে ছেড়ে দিলে বলটি সরাসরি স্ট্যাম্পে আঘাত হানলে বিদায় নেন ১ রান করা মুশফিকুর রহীম।

    চতুর্থ উইকেটে ইমরুল ও লিটন দাস ৩৩ রানের জুটি গড়ে বিচ্ছিন্ন হন। ইমরুল কায়েস লঙ্কান স্পিনার দিলরুয়ান পেরেরার বলে এলবিডব্লিউ হয়ে সাজঘরে ফিরলে চতুর্থ উইকেট হারায় স্বাগতিকরা। ইমরুল কায়েস করেন ১৯ রান। বাকি সময়টা লিটন দাস ও মেহেদী হাসান মিরাজ কাটিয়ে দিলে প্রথম দিনের খেলা শেষ হয়। বাংলাদেশের স্কোর তখন ৫৬/৪। আর ওভার মোকাবেলা করেছে ২২টি। ফলে প্রথম  দিনে খেলা হয়েছে ৮৭.৩ ওভার।

    এর আগে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের দুই বাঁ-হাতি স্পিনার অভিজ্ঞ আব্দুর রাজ্জাক এবং তাইজুল ইসলামের স্পিন আঘাতে প্রথম ইনিংসে ২২২ রানে অলআউট হয় শ্রীলংকা।

    আব্দুর রাজ্জাক ৪ বছর পর দলে ফিরেই ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে লঙ্কানদের চার উইকেট শিকার করেন (৪/৬৩)। এতদিন টেস্টে আব্দুর রাজ্জাকের ক্যারিয়ার সেরা বোলিং ছিল ৩/৯৩।

    অপর স্পিনার তাইজুল ৮৩ রান খরচায় শিকার করেন ৪ উইকেট। টেস্ট ক্যারিয়ারে দ্বিতীয়বারের মতো ৪ উইকেট শিকার করলেন তাইজুল। বাকি দুই উইকেট নেন দলে থাকা একমাত্র পেসার মোস্তাফিজুর রহমান।

    মাত্র ১৪ রানেই প্রথম উইকেট হারায় শ্রীলংকা। ওপেনার কারুনারত্নেকে ফিরিয়ে দেন স্পিনার আব্দুর রাজ্জাক। ৩ রান করা কারুনারত্নে আব্দুর রাজ্জাকের বলে লিটন দাসের হাতে স্ট্যাম্প হয়ে বিদায় নেন।

    এরপর দ্বিতীয় উইকেটে কুশল মেন্ডিস ও ধনঞ্জয়া ডি সিলভা ৪৭ রানের পার্টনারশিপ গড়েন। ১৯ রান করা ধনঞ্জয়া তাইজুলের বলে সাব্বির রহমানের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে গেলে দ্বিতীয় উইকেটের পতন ঘটে লঙ্কানদের।

    ৯৬ রানে আব্দুর রাজ্জাকের বলে মুশফিকুর রহীম অসাধারণ ক্যাচ নিলে সাজঘরে ফিরেন ১৩ রান করা গুনাথিলাকা। এরপরের বলেই অধিনায়ক দিনেশ চান্দিমালকে সরাসরি বোল্ড করে দেন রাজ্জাক। সেইসাথে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা জাগিয়ে তোলেন তিনি। ক্রিজে আসা রোসেন সিলভা দেখেশুনে রাজ্জাকের ওই ওভারের তৃতীয় বলটি মোকাবেলা করলে হ্যাটট্রিকের দেখা পাননি রাজ্জাক।

    দলীয় ১০৯ রানে আব্দুর রাজ্জাক ওপেনার কুশল মেন্ডিসকে সরাসরি বোল্ড করে দিলে ৫ম উইকেট হারায় লঙ্কানরা। কুশল মেন্ডিস ক্যারিয়ারের ৫ম ফিফটির দেখা পান এদিন। ৬৮ রান করে আউট হন তিনি। দলীয় স্কোরের সাথে ১ রান যোগ করতেই লঙ্কান উইকেটরক্ষক ডিকবেলাকে বোল্ড করে দেন তাইজুল। ডিকবেলা ১ রানের বেশি এগুতে পারেননি।

    অষ্টম উইকেট জুটিতে রোসেন সিলভা ও দিলরুয়ান পেরেরা ৫২ রানের পার্টনারশিপ গড়েন। দিলরুয়ান পেরেরা ৩১ রান করে আউট হন। রোসেন সিলভা আকিলা ধনঞ্জয়াকে নিয়ে ৪৩ রানের আরা একটি পার্টিনারশিপ গড়লে ২০০ রান পার করে লঙ্কানরা। মোস্তাফিজুর রহমানের বলে মুশফিকুর রহীমের তালুবন্দী হওয়ার আগে আকিলা ধনঞ্জয়া নিজের নামের পাশে যোগ করেন ২০ রান।

    ২০৭ রানে ২ রান করা রঙ্গনা হেরাথ বিদায় নিলে ৯ উইকেট হারায় শ্রীলংকা। লঙ্কান শিবিরে শেষ পেরেকটি ঠুকে দেন বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল। ৫৬ রান করা রোসেন সিলভাকে উইকেটরক্ষক লিটন দাসের হাতে ক্যাচ দিতে বাধ্য করেন তাইজুল। সেইসাথে ২২২ রানে অলআউট হয় শ্রীলংকা। রোসেন সিলভা ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় অর্ধশত রান পূর্ণ করেন এদিন।

    সংক্ষিপ্ত স্কোর

    টস: শ্রীলংকা

    শ্রীলংকা প্রথম ইনিংস: ২২২/১০ (৬৫.৩ ওভার) (কুশল মেন্ডিস ৬৮, রোসেন সিলভা ৫৬, দিলরুয়ান পেরেরা ৩১, আকিলা ধনঞ্জয়া ২০, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা ১৯; আব্দুর রাজ্জাক ৪/৬৩, তাইজুল ইসলাম ৪/৮৩, মোস্তাফিজুর রহমান ২/১৭)।

    বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ৫৬/৪ (২২ ওভার) (ইমরুল কায়েস ১৯, তামিম ইকবাল ৪, মুশফিকুর রহীম ১, মুমিনুল হক ০, লিটন দাস ২৪* ও মেহেদী হাসান মিরাজ ৫*; সুরঙ্গা লাকমাল ২/১৫, দিলরুয়ান পেরেরা ১/২৫)।

     

    বিডিস্পোর্টস২৪ ডটকম/বিকে


অতিথি কলাম

সাক্ষাৎকার

স্পোর্টস ফ্যাশন


প্রবাসী তারকা

জেলা ক্রীড়া সংস্থা

বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮