পাকিস্তানকে হারিয়ে ফাইনালে ভারত – BD Sports 24
  • পাকিস্তানকে হারিয়ে ফাইনালে ভারত

    September 12th, 2018

    ক্রীড়া প্রতিবেদক

    বিডিস্পোর্টস২৪ ডটকম

    ঢাকা, ১২ সেপ্টেম্বর: সাফ সুজুকি কাপের ফাইনালে উঠেছে গত আসরের চ্যাম্পিয়ন ভারত। আজ বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে উত্তেজনাপূর্ণ সেমিফাইনালে মানবীর সিং-এর জোড়া গোলে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানকে ৩-১ গোলে পরাজিত করে টানা সপ্তমবারের মতো ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে ভারত।

    দ্বিতীয় সেমিফাইনালের প্রথমার্ধে কোনো গোল হয়নি। সবক’টি গোলই হয় দ্বিতীয়ার্ধে।

    এ নিয়ে ১২ আসরের মধ্যে ১১ বারই ফাইনালে পা রাখলো সাফে সাতবারের চ্যাম্পিয়নরা।

    সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে ২০০৩ সালের আসরে সেমিফাইনালে বাংলাদেশের কাছে হেরে ফাইনালে যেতে ব্যর্থ হয় ভারত। এরপর ২০০৫, ২০০৮, ২০০৯, ২০১১, ২০১৩, ২০১৫ এবং ২০১৮’র আসরে অর্থাৎ গত সাতটি আসরে টানা ফাইনালে খেলার অনন্য নজির স্থাপন করলো ভারত।

    অপরদিকে আজ ভারতের কাছে ৩-১ গোলে হেরে যাওয়ায় মোট ১০ আসরের মধ্যে ৫ বার সেমিফাইনালে গিয়েও ফাইনালে যেতে ব্যর্থ হলো পাকিস্তান।

    উত্তেজনাপূর্ণ সেমিফাইনালটির প্রথমার্ধ শেষ হয় ০-০ অমীমাংসিতভাবে। প্রথমার্ধে দুই দলই আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণ করে খেলে। পাকিস্তানের চেয়ে বেশি আক্রমণ করে খেলে ভারত। কিন্তু ভারতের বেশ কয়েকটি আক্রমণ পাকিস্তান গোলরক্ষক ইউসুফ ইজাজ বাট অসামান্য দক্ষতায় রুখে দেন।

    অপরদিকে পাকিস্তানও বেশ কয়েকবার ভারতীয় শিবিরে হানা দেয়। তা থেকে গোল না পাওয়ায় ০-০ অমীমাংসিতভাবে শেষ হয় প্রথমার্ধ।

    শুরুতেই আক্রমণে যায় পাকিস্তান। ৬ মিনিটে ডান প্রান্ত থেকে মহসীন আলীর নেয়া ফ্রি কিকে অধিনায়ক সাদ্দাম হোসেনের নেয়া হেড অল্পের জন্য ক্রসবারের উপর দিয়ে বাইরে যায়।

    ৮ মিনিটে ভারতের স্ট্রাইকার মানবীর সিং-এর নেয়া শট পাক গোলরক্ষক ইউসুফ ইজাজ বাট ডান দিকে ঝাঁপিয়ে নিজের নিয়ন্ত্রণে নেন।

    ১০ মিনিটে ভারতের আরও একটি প্রচেষ্টা নস্যাৎ করে দেন পাক গোলরক্ষক। এ সময় ডি বক্সের সামান্য বাইরে থেকে মিডফিল্ডার ভিনিত রায়ের নেয়া ডান পায়ের শট পাকিস্তানের গোলরক্ষক ইউসুফ ইজাজ বাট দক্ষতার সাথে ফিস্ট করে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন।

    ১৮ মিনিটে ভারতের স্ট্রাইকার মানবীর সিং-এর নেয়া শট অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে গোলের দেখা পায়নি ভারত।

    ২৪ মিনিটে আবারও আক্রমণে যায় ভারত। এ সময় ছোট ডির ভেতর থেকে কাশেম চৌধুরী ছোট পাসে কিছুটা পেছনে ফাঁকায় দাঁড়ানো মানবীর সিংকে বল দেন। মানবীর সিং কালবিলম্ব না করে গোলমুখে বাম পায়ে শট নেন। কিন্তু পাকিস্তানের গোলরক্ষক ইউসুফ ইজাজ বাট কর্নারের বিনিময়ে তা প্রতিহত করেন।

    ২৬ মিনিটে আবারও একটি নিশ্চিত গোল রক্ষা করেন পাক গোলরক্ষক। এ সময় ডি বক্সের কিছুটা বাইরে থেকে আশিক কুরুনিয়ানের নেয়া ডান পায়ের বাঁকানো শট গোলে ঢোকার মুহূর্তে পাকিস্তানের গোলরক্ষক ইউসুফ ইজাজ বাট লাফিয়ে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন।

    ৩৮ মিনিটে পাকিস্তান একটি গোলের সহজ সুযোগ নষ্ট করে। এ সময় পাকিস্তানের স্ট্রাইকার হাসান নাভেদ বশির গোলরক্ষককে একা পেয়েও গোল করতে ব্যর্থ হন। তার নেয়া ডান পায়ের শট ভারত গোলরক্ষক বিশাল কাইথি ফিরিয়ে দেন।

    এর পরের মিনিটেই অর্থাৎ ৩৯ মিনিটে ভারতও একটি সুযোগ হাতছাড়া করে। বাম প্রান্ত দিয়ে একক প্রচেষ্টায় বল নিয়ে ভারতের কাশেম চৌধুরীর নেয়া বাম পায়ের শট দ্বিতীয় পোস্টে ঘেঁষে বাইরে গেলের গোলের দেখা পায়নি ভারত।

    ৪৩ মিনিটে ডি বক্সের সামান্য বাইরে ফ্রি-কিক পায় পাকিস্তান। হাসান নাভেদ বশিরের নেয়া ফ্রি-কিক ভারতীয় রক্ষণভাগের খেলোয়াড়ের গায়ে লেগে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা হয়।

    ৪৫+১ মিনিটে গোলমুখে নেয়া পাক অধিনায়ক সাদ্দাম হোসেনের নেয়া ক্রসে স্ট্রাইকার হাসান নাভেদ বশিরের নেয়া হেড অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে প্রথমার্ধ শেষ হয় ০-০ অমীমাংসিতভাবে।

    দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই পাকিস্তানকে চেপে ধরে ভারত। ফলও পায় তারা। ৪৭ মিনিটে মাঝ মাঠ থেকে মিডফিল্ডার নিখিল চন্দ্র শেখর লম্বা থ্রু পাসে ডানপ্রান্তে বল দেন আশিক কুরুনিয়ানকে। আশিক কুরুনিয়ান বল ধরে ক্ষিপ্রতার সাথে এগিয়ে  গিয়ে গোলমুখে ক্রস করেন। তা থেকে ভারতের স্ট্রাইকার মানবীর সিং পা ছোঁয়ালে বল পাকিস্তানের জাল স্পর্শ করে (১-০)।

    ৬৯ মিনিটে আবারও গোল পায় ভারত। এ সময় ভারতের বদলি খেলোয়াড় লাললিয়ানজুয়ালা বাম প্রান্ত থেকে ডি বক্সের সামান্য বাইরে বল দেন বিনিত রায়কে। বল ধরেই কিছুটা ডানে বল দেন মানবীর সিংকে। মানবীর সিং-এর নেয়া ডান পায়ের শট পাকিস্তানের জালে আশ্রয় নেয় (২-০)। মানবীর সিং-এর দ্বিতীয় গোল এটি। সেইসাথে এবারের আসরে তার গোলসংখ্যা এখন ৩।

    ৮৪ মিনিটে বাম প্রান্ত দিয়ে আক্রমণে যায় ভারত। এ সময় ডি বক্সের সামান্য ভেতর খেকে আশিক কুরুনিয়ানের ক্রসে দর্শনীয় হেডে পাকিস্তানের জালে বল পাঠান ভারতের বদলি স্ট্রাইকার সুমিত পাসি (৩-০)।

    ২ মিনিট পরই সংঘর্ষে লিপ্ত হওয়ার কারণে পাকিস্তানের মহসীন আলী এবং ভারতের লাললিয়ানজুয়ালাকে লাল কার্ড দেখিয়ে মাঠ থেকে বের করে দেন সিভাকম পি-উদুম।

    ৮৮ মিনিটে পাকিস্তানের স্ট্রাইকার হাসান নাভেদ বশির পাকিস্তানের পক্ষে একটি গোল শোধ করেন (১-৩)। শেষ অবধি ভারতের বিপক্ষে ৩-১ গোলের জয়ে ফাইনালে পৌঁছে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা।

    আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর শনিবার সাফ সুজুকি কাপের ফাইনালে মুখোমুখি হবে ভারত-মালদ্বীপ। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা ৭.০০টায় শুরু হবে খেলাটি।

     

    বিডিস্পোর্টস২৪ ডটকম/এমএকে


অতিথি কলাম

সাক্ষাৎকার

স্পোর্টস ফ্যাশন


প্রবাসী তারকা

    No posts here...

জেলা ক্রীড়া সংস্থা

বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  


ক্রীড়া সাহিত্য

ব্যাডমিন্টন

আরচ্যারি

গল্‌ফ

ভারোত্তোলন

মহিলা ক্রীড়া সংস্থা

    No posts here...