ফয়সালকে সংবর্ধনা দিল ওয়ালটন গ্রুপ – BD Sports 24
  • ফয়সালকে সংবর্ধনা দিল ওয়ালটন গ্রুপ

    November 28th, 2018

    ক্রীড়া ডেস্ক

    বিডিস্পোর্টস২৪ ডটকম

    ঢাকা, ২৮ নভেম্বর: ওয়ালটন গ্রুপ পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে আব্দুল হালিমকে দিয়ে তিন-তিনটি গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ড গড়িয়েছে। এরপর ফুটবল মানব মাসুদ রানাকে দিয়ে একটি রেকর্ড গড়ায় ওয়ালটন। তারই ধারাবাহিকতায় আরেক প্রতিভাবান ফুটবল ফ্রিস্টাইলার মাহমুদুল হাসান ফয়সালকে দিয়েও একটি রেকর্ড গড়িয়েছে ওয়ালটন গ্রুপ।

    গত ১১ আগস্ট দুই হাত গোল করে তার মধ্যে এক মিনিটে সবচেয়ে বেশিবার (১৩৪ বার) বল ঘুরিয়ে রেকর্ড গড়ার (Most football arm rolls in one minute) প্রচেষ্টা চালান ফয়সাল। সেগুলোর ভিডিও ও অন্যান্য ডকুমেন্ট গিনেস বুক কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেওয়া হয়। এরপর বিচার-বিশ্লেষণ করে ৭ নভেম্বর তার রেকর্ডের স্বীকৃতি দেয় গিনেস বুক কর্তৃপক্ষ।

    আজ বুধবার বিকেলে বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের সভাকক্ষে ফয়সালকে সংবর্ধনা দিয়েছে ওয়ালটন গ্রুপ। অনুষ্ঠানে ফয়সালের হাতে ১ লাখ টাকার চেক তুলে দেওয়া হয় ও ব্লেজার পড়িয়ে দেওয়া হয়। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন গ্রুপের সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর (গেমস অ্যান্ড স্পোর্টস) এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন), এটিএন বাংলার উপদেষ্টা (চেয়ারম্যান) কর্নেল (অবঃ) মীর মোতাহার হাসান, রেডিও টুডের হেড অব প্রোগ্রাম ডেভেলপমেন্ট জহিরুল ইসলাম টুটুলসহ অন্যান্যরা।

    ওয়ালটন গ্রুপের সংবর্ধনা পেয়ে উচ্ছ্বসিত মাহমুদুল হাসান ফয়সাল বলেন, ‘এতো অল্প সময়ে রেকর্ডটা হওয়াতে আমি খুবই আনন্দিত। এই আনন্দের পেছনে অনেকের অবদান আছে। তারা হলেন আমার বাবা-মা, নানা-নানু। তাদের অবদানে আমি রেকর্ডটি করতে পারছি। আর সবচেয়ে বড় অবদান রেখেছে ওয়ালটন গ্রুপ ও এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন) স্যার। তাদের কথা না বললেই নয়। তাদের উৎসাহ, অনুপ্রেরণা, সব রকমের সহযোগিতা ও পৃষ্ঠপোষকতায় আজকের এই রেকর্ডটা আমি করতে পেরেছি। তারা আমাকে সংবর্ধনা দেওয়ায় আমি কৃতজ্ঞ। আমার রেকর্ড গড়ার ক্ষেত্রে অনুপ্রেরণা যুগিয়েছেন গিনেস রেকর্ডধারী আব্দুল হালিম ভাই, মাসুদ রানা ভাই। আমি আবারো ধন্যবাদ জানাব ওয়ালটন গ্রুপকে, রাইজিংবিডিকে ও আমার বন্ধুদের।’

    এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন) বলেন, ‘এর আগে গেল সপ্তাহের শুরুতে আমরা গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডধারী মাসুদ রানাকে সংবর্ধনা দিয়েছিলাম। এবার মাহমুদুল হাসান ফয়সালকে দিচ্ছি। ফয়সাল দেশের নামকে বহির্বিশ্বে ছড়িয়ে দিয়েছে। এ জন্যই আমরা নতুন ট্যালেন্টদের খুঁজতে থাকি। সারাদেশে আমাদের অনেকগুলো আউটলেট আছে, প্রায় ২০ হাজারের মতো। আপনারা দেখবেন প্রত্যেকটা উপজেলার প্রায় প্রত্যেকটা বাজারেই আমাদের ওয়ালটনের কিংবা মার্সেলের শোরুম আছে। সবাইকে বলা আছে আপনাদের এলাকাতে যদি কোনো ট্যালেন্ট পাওয়া যায় তাহলে ওয়ালটন গ্রুপের গেমস অ্যান্ড স্পোর্টস বিভাগের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলবেন। গতকালই নতুন একজন ট্যালেন্ট এসেছেন আমাদের কাছে। তার নাম এসকান্দার আলী তালুকদার। তাকে নিয়েও আমরা চেষ্টা করছি।’

    ‘আব্দুল হালিমকে দিয়ে আমরা তিন-তিনটি রেকর্ড গড়িয়েছি। ২০১৯ সালে তাকে দিয়ে আবারো রেকর্ড গড়াব। মাসুদ রানাকে দিয়ে একটি করিয়েছে। আরো বেশ কিছু রেকর্ড তার হাতে রয়েছে। ফয়সাল বয়সে খুবই তরুণ। খুবই ট্যালেন্টেড। সে প্রথমে রেকর্ড ভাঙার জন্য গিনেস বুক কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছে। তারপর প্রস্তুতি নিয়ে সেটা ভেঙে দিয়ে নতুন রেকর্ড গড়েছে। এমনটা এর আগে কখনো আমার চোখে পড়েনি। অনেকগুলো ক্যাটাগোরি নিয়ে ফয়সাল চেষ্টা করছে। আশা করছি তাকে দিয়ে অনেকগুলো রেকর্ড গড়ানো সম্ভব। ওয়ালটন গ্রুপ সর্বদাই চেষ্টা করবে এই ধরনের ট্যালেন্টদের নিয়ে কাজ করতে।’

    ১৭ বছর বয়সী ফুটবল ফ্রিস্টাইলার ফয়সাল ২০১৪ সাল থেকে এই প্রচেষ্টা শুরু করেন। সেটা শুধু ফুটবল নিয়ে নয়, বিভিন্ন বিষয় নিয়ে। মাহমুদুল হাসানের জন্ম নড়াইলের কালিয়াতে। পৈতৃক নিবাস মাগুরার হাজীপুর। সেখানেই তিনি বেড়ে উঠেছেন। কাটিয়েছেন শৈশব ও কৈশর। বাবা আগে সেনাবাহিনীতে চাকরি করতেন। বর্তমানে অবসরপ্রাপ্ত। মাগুরা সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ থেকে এসএসসি পাসের পর মাগুরা পলিটেকনিক ইনিস্টিটিউটে ভর্তি হন ফয়সাল। তিনি ফুটবল, বাস্কেটবল দিয়ে বিভিন্ন ধরনের কসরত দেখানোর পাশাপাশি আরো বেশ কয়েকটি বিষয়ে পারদর্শী। রেকর্ড ভাঙা ও গড়াটাকে প্যাশন হিসেবে নিয়েছেন তিনি।

     

    বিডিস্পোর্টস২৪ ডটকম/বিকে


অতিথি কলাম

সাক্ষাৎকার

স্পোর্টস ফ্যাশন


প্রবাসী তারকা

জেলা ক্রীড়া সংস্থা

বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  


ক্রীড়া সাহিত্য

ব্যাডমিন্টন

আরচ্যারি

গল্‌ফ

ভারোত্তোলন

মহিলা ক্রীড়া সংস্থা