সানডের জোড়া গোলে হ্যাটট্রিক শিরোপা জয় আবাহনীর – BD Sports 24
  • সানডের জোড়া গোলে হ্যাটট্রিক শিরোপা জয় আবাহনীর

    November 23rd, 2018

    ক্রীড়া প্রতিবেদক

    বিডিস্পোর্টস২৪ ডটকম

    ঢাকা, ২৩ নভেম্বর: নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড সানডে চিজুবার জোড়া গোলে ফেডারেশন কাপের ফাইনালে নবাগত বসুন্ধরা কিংসকে ৩-১ গোলে পরাজিত করে ফেডারেশন কাপের এবারের আসরের শিরোপা জয় করেছে ঐতিহ্যবাহী ঢাকা আবাহনী লি:। সেইসাথে হ্যাটট্রিক শিরোপা জয়ের কৃতিত্ব দেখালো আকাশি-নীল জার্সিধারীরা।

    প্রথমার্ধে কলিনড্রেসের গোলে ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেও শিরোপা জয়ে ব্যর্থ হয় নবাগত বসুন্ধরা কিংস। ফলে মৌসুমের প্রথম আসরে রানার্স্ আপেই সন্তুষ্ট থাকতে হয় বসুন্ধরা কিংসকে।

    দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই অর্থাৎ ৫০ মিনিটে সানডের গোলে সমতা আনে আবাহনী। ৭৮ মিনিটে সানডে আবারও গোল করলে ২-১এ এগিয়ে যায় আবাহনী। ৮২ মিনিটে বেলফোর্টের গোলে ৩-১ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ঢাকা আবাহনী।

    ৪ মিনিটে ডি বক্সের ভেতরে বল পেয়েও গোলমুখে শট নিতে পারেননি বসুন্ধরা কিংস ফরোয়ার্ড কলিনড্রেস। তার নেয়া শট আবাহনীর ডিফেন্ডার ওয়ালি ফয়সালের পায়ে লেগে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা পায়।

    কর্নার থেকে মাহবুবুর রহমান সুফিলের নেয়া হেড ক্রস বারের অনেক উপর দিয়ে বাইরে গেলে গোল পায়নি বসুন্ধরা কিংস।

    ১৬ মিনিটে আবাহনীর আতিকুর রহমান ফাহাদ বসুন্ধরা কিংস-এর কিরগিজ মিডফিল্ডার বখতিয়ারকে ফাউল করায় রেফারি মো: মিজানুর রহমান ফাহাদকে হলুদ কার্ড দেখিয়ে সতর্ক করে দেন।

    ২১ মিনিটে বসুন্ধরা কিংস তাদের কোস্টারিকান ফরোয়ার্ড কলিনড্রেসের গোলে ১-০তে লিড নেয়। এ সময় ডি বক্সের বাইরে থেকে বসুন্ধরা কিংস মিডফিল্ডার আলমগীর কবির রানার গোলমুখে নেয়া শট আবাহনীর গোলরক্ষক শহিদুল আলম সোহেল ফিস্ট করে প্রতিহত করেও শেষ রক্ষা করতে পারেননি। ফিরতি বলে ডি বক্সের ভেতর থেকে বাম পায়ের জোরালো শটে কলিনড্রেস আবাহনীর জালে বল পাঠান (১-০)।

    ২৬ মিনিটে বসুন্ধরা কিংস গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকোর অসামান্য দক্ষতায় খেলায় সমতা আনতে পারেনি ঢাকা আবাহনী। এ সময় ডান প্রান্ত থেকে ওয়ালি ফয়সালের নেয়া ফ্রি-কিক থেকে আবাহনীর হাইতির ফরোয়ার্ড বেলফোর্টের নেয়া হেড গোলে ঢোকার মুহূর্তে বসুন্ধরা কিংস গোররক্ষক আনিসুর রহমান জিকো ডানদিকে ঝাঁপিয়ে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন।

    ৩৬ মিনিটে ছোট ডি’র ভেতরে বল পেয়েও গোল করতে ব্যর্থ হন আবাহনীর নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড সানডে চিজুবা। বেলফোর্টের কাছ থেকে বল পেয়ে সানডের নেয়া শট লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।

    ৪০ মিনিটে ডি বক্সের ভেতরে বল পেয়েও আবাহনীর ফরোয়ার্ড রুবেল মিয়া গোল পরিশোধ করতে ব্যর্থ হন। তার নেয়া ডান পায়ের দুর্বল শট বসুন্ধরা কিংস গোলরক্ষক জিকোকে ধরতে কোনো বেগ পেতে হয়নি।

    ৪৪ মিনিটে গোলের আরও একটি সহজ সুযোগ নষ্ট করেন সানডে। মাঝ মাঠ থেকে আবাহনীর আফগান ফুটবলার সাইঘানির নেয়া ফ্রি কিক ডি বক্সের ভেতরে বুক দিয়ে থামিয়ে সানডে চিজুবাকে দেন। কিন্তু সানডের নেয়া ডান পায়ের শট সাইড বারের পাশ দিয়ে বাইরে গেলে গোল পরিশোধ করা হয়নি ঢাকা আবাহনীর। সেইসাথে প্রথমার্ধে ১-০ গোলে এগিয়ে থাকে নবাগত বসুন্ধরা কিংস।

    ৪৬ মিনিটে সানডে ডি বক্সের ভেতরে বল পেয়ে বসুন্ধরা কিংস-এর দু’জন ডিফেন্ডারকে ফাঁকি দিয়ে গোলমুখে বাম পায়ে শট নেন। তার নেয়া শট ক্রসবারে লেগে বাইরে গেলে নিশ্চিত গোল থেকে বঞ্চিত হয় ঢাকা আবাহনী।

    ৫০ মিনিটে সানডের গোলে সমতা আনে ঢাকা আবাহনী। এ সময় বাম প্রান্ত থেকে রায়হান হাসানের নেয়া লম্বা থ্রো থেকে সাইঘানি ও বেলফোর্ট হেড নিতে ব্যর্থ হন। কিন্তু তাতে কী ডানপাশে দাঁড়ানো সুযোগসন্ধানী সানডে চিজুবা ডানপায়ের শটে বসুন্ধরা কিংস-এর জালে বল পাঠান (১-১)।

    ৭৮ মিনিটে সানডে নিজের এবং দলের দ্বিতীয় গোলটি করেন। এ সময় মাঝ মাঠ থেকে আবাহনীর মিডফিল্ডার সোহেল রানা ক্ষিপ্রতার সাথে বল নিয়ে এগিয়ে গিয়ে ডি বক্সের সামান্য বাইরে থেকে ডান পায়ে ছোট পাসে বল দেন সানডেকে। চলন্ত বলে ডান পায়ের শটে বসুন্ধরার জালে বল পাঠাতে ভুল করেননি সানডে (২-১)।

    ৮২ মিনিটে ডান প্রান্ত থেকে ওয়ালি ফয়সালের কর্নার থেকে ঢাকা আবাহনীর হাইতির ফরোয়ার্ড বেলফোর্টের নেয়া হেড বসুন্ধরা কিংস-এর জাল স্পর্শ করে (৩-১)।

    শেষদিকে দুই দলের খেলোয়াড়রা মারামারিতে জড়িয়ে পড়লে রেফারি মিজানুর রহমান দুই দলের চারজনকে লালকার্ড দেখিয়ে মাঠ থেকে বের করে দেন।

    এ সময় আবাহনীর নবীব নেওয়াজ জীবন বসুন্ধরা কিংসের ডিফেন্ডার সুশান্ত ত্রিপুরাকে থাপ্পর মারায় সুশান্ত ত্রিপুরা জীবনকে বাম পায়ে বুকে লাথি মেরে মাটিতে ফেলে দেন এবং ঘুষি মারতে থাকেন। এ সময় আবাহনীর বদলি খেলোয়াড় মামুন মিয়া সুশান্ত ত্রিপুরাকে ফ্লাইং কিকে মাটিতে ফেলে দেন। এরপর মামুন মিয়ার গায়ে হাত তোলেন বসুন্ধরা কিংস-এর বদলি ফরোয়ার্ড তৌহিদুল আলম সবুজ। এ ঘটনায় বসুন্ধরা কিংস-এর সুশান্ত ত্রিপুরা ও তৌহিদুল আলম সবুজকে এবং ঢাকা আবাহনীর নবীব নেওয়াজ জীবন এবং মামুন মিয়াকে রেফারি মিজানুর রহমান লাল কার্ড দেখিয়ে মাঠ থেকে বের করে দেন।

    তার আগে বসুন্ধরা কিংস-এর ডিফেন্ডার নাসির উদ্দিন চৌধুরী আবাহনীর নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড সানডেকে মারাত্মকভাবে ফাউল করলে খেলা অনেকক্ষণ বন্ধ থাকে। পরে সানডেকে অ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে নেয়া হয়।

    ৬ গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতা হয়েছেন ঢাকা আবাহনীর নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড সানডে চিজুবা। টুর্নামেন্টর সেরার পুরস্কার পেয়েছেন সানডে। ফাইনালে ম্যাচসেরা হন ঢাকা আবাহনীর মিডফিল্ডার সোহেল রানা।

    চ্যাম্পিয়ন ঢাকা আবাহনী ট্রফির পাশাপাশি প্রাইজমানি পেয়েছেন ৫ লাখ টাকা। অপরদিকে রানার্স আপ নবাগত বসুন্ধরা কিংস ট্রফির পাশাপাশি  প্রাইজমানি হিসেবে পেয়েছেন ৩ লাখ টাকা।

    টুর্নামেন্টে ফেডার  প্লে ট্রফির পুরস্কার পেয়েছে শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র।

    খেলাশেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বাফুফে সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শেদী এমপি চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ দলের হাতে ট্রফি ও প্রাইজমানি তুলে দেন। ওয়ালটনের সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন) এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

     

    বিডিস্পোর্টস২৪ ডটকম/এমএকে


অতিথি কলাম

সাক্ষাৎকার

স্পোর্টস ফ্যাশন


প্রবাসী তারকা

জেলা ক্রীড়া সংস্থা

বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  


ক্রীড়া সাহিত্য

ব্যাডমিন্টন

আরচ্যারি

গল্‌ফ

ভারোত্তোলন

মহিলা ক্রীড়া সংস্থা