সাফ সুজুকি কাপের প্রথমে সেমিতে নেপাল-মালদ্বীপ মুখোমুখি আজ – BD Sports 24
  • সাফ সুজুকি কাপের প্রথমে সেমিতে নেপাল-মালদ্বীপ মুখোমুখি আজ

    September 12th, 2018

    ক্রীড়া প্রতিবেদক

    বিডিস্পোর্টস২৪ ডটকম

    ঢাকা, ১২ সেপ্টেম্বর: সাফ সুজুকি কাপের প্রথম সেমিফাইনালে আজ মুখোমুখি হচ্ছে নেপাল ও মালদ্বীপ। ঢাকার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বিকেল ৪.০০টায় শুরু হবে খেলাটি।

    সাফের ১২তম আসরে নেপাল গ্রুপ ‘এ’তে এবং মালদ্বীপ গ্রুপ ‘বি’তে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হয়। এর মধ্যে নেপাল গ্রুপ ‘এ’র চ্যাম্পিয়ন হিসেবে এবং মালদ্বীপ গ্রুপ ‘বি’র রানার্স আপ হিসেবে সেমিফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে।

    গ্রুপ পর্বে নেপাল তাদের প্রথম খেলায় পাকিস্তানের কাছে ১-২ গোলে হেরে যায়। দ্বিতীয় খেলায় ভুটানকে ৪-০ গোলে এবং তৃতীয় খেলায় স্বাগতিক বাংলাদেশকে ২-০ গোলে পরাজিত করে ২ খেলায় ৬ পয়েন্ট নিয়ে গোলপার্থক্যে এগিয়ে থাকায় গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে সেমির টিকিট পায়।

    অপরদিকে মালদ্বীপ তাদের প্রথম খেলায় শ্রীলংকার সাথে ০-০ ড্র করে। দ্বিতীয় খেলায় ভারতের কাছে ২-০ গোলে হেরে যায়। এর ফলে ২ খেলায় তাদের সংগ্রহ ১ পয়েন্ট। এই গ্রুপের অপর দল শ্রীলংকারও ২ খেলায় সংগ্রহ ১ পয়েন্ট। গোলপার্থক্য সমান হওয়ায় সাফের বাইলজ অনুযায়ী টসের মাধ্যমে সেমিফাইনালের ভাগ্য নির্ধারণ হয় মালদ্বীপ ও শ্রীলংকার। শেষ অবধি টসভাগ্যে শ্রীলংকাকে পেছনে ফেলে সেমিতে পা রাখে মালদ্বীপ। আরও উল্লেখ্য, কোনো গোল না করেই সেমির টিকিট পায় মালদ্বীপ।

    এবার দেখা যাক সাফে নেপাল ও মালদ্বীপের সাফল্য কতটুকু। এক্ষেত্রে নেপালের চেয়ে অনেক এগিয়ে আছে মালদ্বীপ। মালদ্বীপ ১১ আসরের ৯টিতে অংশ নেয়। অংশ নেয়া ৯ আসরের সবকটি’রই সেমিফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে মালদ্বীপ। এর মধ্যে ১৯৯৭, ২০০৩, ২০০৮ ও ২০০৯ সালে ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে। ২০০৮ সালের ফাইনালে ভারতকে ১-০ গোলে হারিয়ে শিরোপা জয় করে। এটি সাফে তাদের সেরা সাফল্য। ১৯৯৭, ২০০৩ ও ২০০৯ সালে ফাইনালে হেরে রানার্স আপ হয় মালদ্বীপ। ১৯৯৯ সালে তৃতীয় হয়। এছাড়া ২০০৫, ২০১১, ২০১৩ ও ২০১৫ সালের আসরে সেমিফাইনালে খেলে মালদ্বীপ।

    অপরদিকে সাফের ১১ আসরের সবকটিতে অংশগ্রহণ করে নেপাল। সাফে নেপালের সেরা সাফল্য ১৯৯৩’র আসরে তৃতীয় স্থান অর্জন। ১১ আসরে ৫ বার সেমিফাইনাল খেলেও ফাইনালে যেতে ব্যর্থ হয় নেপাল। ১৯৯৩ ছাড়াও ১৯৯৫, ১৯৯৯ ও ২০১১ ও ২০১৩’র আসরে সেমিফাইনালে খেলেছিল নেপাল।

    গতকাল বাফুফে ভবনে প্রি-ম্যাচ প্রেস কনফারেন্সে নেপালের কোচ বাল গোপাল মহারজন প্রথমেই বলে প্রতিপক্ষ মালদ্বীপ খুবই ভালো দল। তবে আমার খেলোয়াড়ররা আগামীকাল মালদ্বীপের বিপক্ষে খেলার জন্য মুখিয়ে আছে। মালদ্বীপের বিপক্ষে জিতে আমরা ফাইনালে যেতে চাই। আমরা গ্রুপ পর্বে ৭টি গোল করেছি। খেয়েছি ২টি। আমরা সেমিফাইনালেও গোল করতে চাই। আমাদের প্রতিপক্ষ মালদ্বীপ কোনো গোল না করেই সেমিফাইনালে পৌঁছে। বাংলাদেশে অনেক সাপোর্টার রয়েছে আমাদের।

    বাংলাদেশ আপনাদের জন্য লাকি গ্রাউন্ড কীনা? সাংবাদিকের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, লাক বলতে কিছু নেই। আপনাকে খেলেই জিততে হবে। ৯০ ভাগ পারফরম্যান্স আর ১০ ভাগ লাক বলে আমি মনে করি।

    নেপাল অধিনায়ক বিরাজ মহারজন বলেন, আমরা খুবই খুশী মালদ্বীপের বিপক্ষে খেলতে পেরে। দলের সবাই সুস্থ আচে। আমরা জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী।

    অপরদিকে মালদ্বীপের পিটার হার বাটসকো বলেন, গতকাল আমাদের বহনকারী বাস দুর্ঘটনায় পতিত হয়েছিল। বাংলাদেশের পুলিশ আমাদের বেশ সহায়তা করেছে। এ দুর্ঘটনায় আমার খেলোয়াড়দের কোনো ক্ষতি হয়নি। সবাই সুস্থ আছে। আমার দলে কোনো ইনজুর নেই। আমরা সেমিতে নেপালের বিপক্ষে খেলার জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত। নেপালকে সমীহ করে মালদ্বীপ কোচ বলেন, নেপাল শক্তিশালী দল। আমরা সেরাটা দিয়েই নেপালের বিপক্ষে জয় পেতে চাই।

    মালদ্বীপ অধিনায়ক মোহাম্মেদ মুজুতহাজ বলেন, আমরা নেপালের বিপক্ষে খেলার জন্য প্রস্তুত।

     

    বিডিস্পোর্টস২৪ ডটকম/এমএকে


অতিথি কলাম

সাক্ষাৎকার

স্পোর্টস ফ্যাশন


প্রবাসী তারকা

জেলা ক্রীড়া সংস্থা

বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  


ক্রীড়া সাহিত্য

ব্যাডমিন্টন

আরচ্যারি

গল্‌ফ

ভারোত্তোলন

মহিলা ক্রীড়া সংস্থা